• শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৩৯ অপরাহ্ন
  • English Version

উখিয়া যুবলীগ নেতা মুজিবের ইয়াবা সেবনের ছবি ভাইরাল কক্সবাজার প্রতিনিধি

রিপোর্টার
আপডেট : সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১

মুজিবুল হক আজাদ—তিনি ক্ষমতাসীন দল আওয়ামিলীগের যুব সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ উখিয়া উপজেলা শাখার সভাপতি। দীর্ঘ দেড়যুগ ধরে উখিয়া উপজেলা ছাত্রলীগ ও যুবলীগকে নেতৃত্ব দিয়েছেন ও এখনো দিচ্ছেন। কিন্তু দুর্ভাগ্য এই মুজিব দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অনেক সময় ক্ষমতার খুব কাছাকাছি ছিলেন। তার কর্মী সমর্থক ও কম ছিলো না। কিন্তু শুরু থেকে তার নৈতিকস্খলন জনিত চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের কারণে এই নেতা তার বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন ধরে রাখতে পারিনি। তার অনুগত কর্মীদের বিপদের মুখে ঠেলে দিয়ে নিজের স্বার্থ হাসিল করা এই মুজিবের বেহাল দশার কারণেই এক পর্যায়ে কর্মীরা তার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। যার ফলে আওয়ামীলীগের দুঃসময়ে রাজনীতি করা অনেক নেতা কর্মী আজকে রাজনীতি ছেড়ে দিয়ে অনেকে বিভিন্ন কর্মকান্ডে নিয়োজিত হয়েছেন। এমনকি মুজিবের সাথে দুঃসময়ে রাজনীতি করা এক সাহসী ছাত্রলীগ নেতা আজ টমটম চালাতে দেখা যায়।

যেহেতু মুজিবের কর্মী সমর্থকদের তার নিজ দলের ক্ষমতাবান প্রতিপক্ষরা মেনে নিতে পারেনি এই সুযোগে বিভিন্ন দল থেকে আসা অসাধু ব্যক্তিরা ক্ষমতাবান আওয়ামীলীগ নেতাদের সাথে লুটেপুটে খেয়ে উখিয়ার প্রকৃত অনেক আওয়ামীলীগার দের কে কোন ঠাসা করে রেখেছেন।

উখিয়ার আওয়ামী রাজনীতিতে আজকে চরম অসন্তোষ বিরাজমান। এখানে আওয়ামী রাজনীতিতে এক পক্ষ শোষক ও আরেক পক্ষ শোষিত, শোষিত মানুষেরা কোনদিন দুর্নীতি, স্বজন প্রীতি ও যে কোন অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলে নিজ দল আওয়ামিলীগের কর্মী হলেও অনেককেই মিথ্যা মামলায় কারাগারে নিক্ষেপ করার নজির রয়েছে।

এরকম একটি পরিস্থিতিতে উখিয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মুজিবুল হক আজাদ গত ২৬/০৮/২১ ইং দুপুরে কোটবাজার ষ্টেশনের পাশে খন্দকার পাড়ার সরওয়ার কামাল শিখির বাসায় ইয়াবা সেবন ও জুয়াখেলা অবস্থায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আটক হয়ে মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পাওয়ার খবরে এই উপজেলায় যুবলীগ তথা আওয়ামী পরিবারের নেতাকর্মীদের মাঝে তীব্র ক্ষেভের সৃষ্ট হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক যুবলীগ নেতা মনে করেন এখনই মুজিবকে যুবলীগ থেকে বহিষ্কার করে উখিয়া উপজেলা যুবলীগকে কলংকমুক্ত করা সময়ের দাবি। যুবলীগ নেতারা মনে করেন উখিয়া যুবলীগকে রক্ষা করতে হলে পরিচ্ছন্ন, প্রতিশ্রুতিশীল ও সাহসী যুবনেতাদের যুবলীগের নেতৃত্বে আনা হলে এই উপজেলায় যুবলীগের প্রতি সাধারণ মানুষের ও যুব সমাজের আস্থা আরও বহুগুণ বেড়ে যাবে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে খন্দকার পাড়ার বাসিন্দা Md Reduan Karim লিখেছেন মুজিব যে লাথিগুলো খাইছে RAB থেকে, তার বাপের জন্মেও খাই নাই, পালংখালীর কৃষকলীগ নেতা Kholil Ahmod লিখেছেন মুজিবের ব্যাপারে আরও ৫ বছর আগে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার ছিল।
Salamat Ullah নামের এক যুবলীগ নেতা লিখেছেন ইয়াবা সেবনকারী মুজিব উখিয়ার সকল অপকর্মের মূল নায়ক এবং মোটরসাইকেল ছিনতাই কারীদের আশ্রয়দাতা, তাকে দল থেকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হোক।

এব্যাপারে উখিয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি
মুজিবুল হক আজাদের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার না করে তড়িঘড়ি করে ফোন কেটে দেন।

জেলা যুবলীগ সভাপতি ও উখিয়া-টেকনাফ আসনের আগামী দিনের নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী জননেতা সোহেল আহমদ বাহাদুর জানিয়েছেন সম্প্রীতি মুজিবুল হক আজাদকে নিয়ে সৃষ্ট ঘটনার সত্যতা ফেলে অবশ্যই মুজিবের বিষয়ে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল হক সোহেল জানিয়েছেন উখিয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মুজিবুল হক আজাদ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে আটক হয়ে মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পাওয়ার কথা তিনি শুনেছেন,প্রয়োজনে আরও খোঁজখবর নিয়ে তার বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ইতিপূর্বে গত ৩১/০৭/২১ইং তারিখে “”উখিয়া উপজেলা যুবলীগের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে মাদকাসক্ত মুজিব ” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হলে ও কোন সাংগঠনিক ব্যবস্থা না নেওয়ায় উখিয়া উপজেলা যুবলীগের সর্বস্তরের নেতা কর্মীদের মাঝে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।


এই বিভাগের আরো খবর