লাকসামে দু’পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে নিহত ১

প্রকাশিত: ২:০৯ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০২০

পিবিএ,লাকসাম (কুমিল্লা): কুমিল্লার লাকসামে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জের ধরে টেঁটাবিদ্ধ হয়ে ১ জন নিহত ও আহত হয়েছে অন্তত ১০ জন। ঘটনাটি ঘটেছে আজ বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) সকালে উপজেলার মুদাফরগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়নের শ্রীয়াং গ্রামের রাজন ভুঁইয়ার বাড়ীতে।

নিহত মোহাম্মদ উল্ল্যাহ (৩৮) রাজন ভুঁইয়ার বাড়ীর মৃত. ইউনুছ মিয়ার ছেলে। এই সম্পত্তি নিয়ে গত কয়েক বছরে পাল্টাপাল্টি হামলায় আরও ৩জন লোক নিহত হয়েছিল। এ ঘটনার পর থেকে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল থেকে লাকসাম থানা পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে র্মগে পাঠিয়েছে। নিহতের চাচাত ভাই বাদী হয়ে ২৪ জনকে আসামী করে বৃহস্পতিবার দুপুরে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

সরেজমিনে গিয়ে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মুদাফরগঞ্জ ইউনিয়নের শ্রীয়াং গ্রামের রাজন ভুঁইয়ার বাড়ীতে ৩একর ৫৪ শত জমি নিয়ে একই পাড়ার সাইফুল ইসলামদের সাথে প্রায় দীর্ঘ বছর যাবৎ আদালতে মামলা চলছে। ওই সম্পত্তি নিয়ে বিগত কয়েক বছরে শতাধিক বার পাল্টাপাল্টি হামলা ও সংর্ঘষের ঘটনা ঘটেছে। ওইসব ঘটনায় উভয় পক্ষের হামলায় সানা উল্ল্যাহ, আবদুর রহিম নামে ২ব্যক্তি নিহত হয়েছে। এছাড়াও উভয় পক্ষ আদালতে পাল্টাপাল্টি অর্ধশতাধিক মামলা দায়ের করে।

বৃহস্পতিবার সকালে বেলায় সাইফুল ইসলাম গ্রুপের লোকেরা ভাড়া লোকজন নিয়ে বিভিন্ন প্রকার দেশীয় অস্ত্র নিয়ে রাজন ভুঁইয়া বাড়ীর লোকজনের উপর অর্তকিত হামলা চালায়। তাদের হামলায় বুকে টেঁটাবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্হলেই মৃত.ইউনুছ মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ উল্ল্যাহ নিহত হয়। তাদের হামলায় একই বাড়ীর আবদুর রশিদের ছেলে আহছান উল্ল্যাহ, মনির হোসেন, সোলতান আহমেদ,রুহুল আমিনসহ উভয় পক্ষের প্রায় ১০জন আহত হয়। এছাড়াও তাদের হামলায় রাজন ভুঁইয়া বাড়ীর রুহুল আমিন, মানিক, ফারুকসহ ৪টি বসতঘর ভাংচুর করা হয়।

সংর্ঘষের ঘটনার পর থেকে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঘটনার পর গ্রেফতার এড়াতে সাইফুল ইসলাম গ্রুপের লোকজন এলাকা ছেড়ে আত্মগোপনে রয়েছে।

লাকসাম থানার ওসি নিজাম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, হামলার ঘটনায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতারের চেষ্ঠা চলছে।