ajker kagoj 24
Latest Bangla News

দেশের বিভিন্ন স্থানে ঈদ আজ

মির্জাখীল দরবার শরীফ

বিএনএ, ঢাকা: সৌদিআরবের সঙ্গে মিল রেখে রোববার(২৪মে) চট্টগ্রাম, চাঁদপুর, পাবনা, শরীয়তপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী ও ভোলার কয়েকটি স্থানে ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে।

ওইসব এলাকার কাদেরিয়া চিশতিয়া, সুরেশ্বর দরবার শরীফসহ বিভিন্ন তরিকা ও পীরের অনুসারীরা দু’শ বছর থেকে শুরু করে বিশ বছরের মতো সময়কাল ধরে ইসলাম ধর্মের আবির্ভাবের স্থান সৌদী আরবের সঙ্গে একই দিন ঈদ পালন করে আসছেন।

এর মধ্যে দক্ষিণ চট্টগ্রামের ৩০টি গ্রাম, চাঁদপুরের অর্ধশত, বরগুনার নয়টি, পাবনায় একটি, ভোলায় দুটি, শরীয়তপুরে ২০টি ও পটুয়াখালীর ২৪টি গ্রামে ঈদ করেন কয়েক হাজার মানুষ। এসব এলাকায় সকালেই ঈদের জামাত হয়। তৈরি হয় আনন্দঘন উৎসবমুখর পরিবেশ।

চট্টগ্রাম: হানাফী মাজহাবের অনুসারী দক্ষিণ চট্টগ্রামের ৩০টির বেশি গ্রামে রোববার ঈদ উদযাপিত হতে যাচ্ছে।

দক্ষিণ চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার সোনাকানিয়া ইউনিয়নের মির্জাখীল দরবার শরীফের অনুসারীরা ২শত৫০ বছরের রেওয়াজ অনুযায়ী সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে রোজা পালন শেষে ঈদ উদযাপন করেন।প্রধান ও সবচেয়ে বড় ঈদ জামাত হয় মির্জাখীল দরবার শরীফে। এ দরবারের অনুসারীরা একইভাবে ঈদ পালন করেন জেলার বাঁশখালী, বোয়ালখালী, আনোয়ারা, সাতকানিয়া, চন্দনাইশ, পটিয়ার বিভিন্ন এলাকায়।এ সব জামাতে আশপাশের জেলা উপজেলার দরবার শরীফের অনুসারীরা অংশ নেন।

মির্জাখীল দরবার শরীফ
দরবারের পক্ষে মওলানা ড. মোহাম্মদ মকছুদুর রহমান বলেন, প্রায় ২৫০ বছর ধরে সৌদি আরবের সময় অনুসরণ করে আমরা ঈদ, রোজা, কুরবানি পালন করছি। সে অনুযায়ী আমরা রোববার পবিত্র ঈদুল ফিতর পালন করব। ওইদিন সকাল ১০টায় পবিত্র ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। করোনার কারণে এবার দরবার শরীফে বড় ঈদ জামাতের আয়োজন হচ্ছে না। নিজ নিজ এলাকায় ছোট পরিসরে ঈদের জামাত আয়োজনের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
সাতকানিয়ার বাইরের দরবার শরীফের অনুসারীরা একদিন আগে থেকেই ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য মির্জাখীল দরবারে সমবেত হন।সেখানে কয়েকশ মানুষের থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়।
প্রায় দু’শত ৫০ বছর আগে সাতকানিয়ার মীর্জাখীল গ্রামে হযরত মাওলানা মোখলেসুর রহমান জাহাগিরি (র.) দরগাহ শরীফ স্থাপন করেন। সে সময় থেকে হানাফী মাজহাবের মত অনুসারে রোজা ও ঈদসহ সকল ধর্মীয় উৎসব তারা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে পালন করে আসছে।

চাঁদপুর: জেলার পাঁচ উপজেলার প্রায় অর্ধশত গ্রামে রোববার পবিত্র ঈদুল ফিতর পালিত হবে। এসব গ্রামের লোকজন বাংলাদেশে রোজা শুরু হওয়ার একদিন আগে সৌদিআরবের সঙ্গে রোজা পালন শুরু করেন। শনিবার তাদের ৩০ রোজা পূর্ণ হয়।

এসব গ্রামের মানুষ হাজীগঞ্জ উপজেলার সাদ্রা গ্রামের মরহুম পীর মাওলানা ইসহাকের অনুসারী।

চাঁদপুরের যেসব গ্রামে রোববার ঈদ পালিত হবে সেগুলো হলো : হাজীগঞ্জ উপজেলার সাদ্রা, সমেশপুর, অলীপুর, বলাখাল, মনিহার, ভোলাচোঁ, জাক্নি, সোনাচোঁ, প্রতাপপুর, বাসারা।

এছাড়া ফরিদগঞ্জ উপজেলার উভারামপুর, মুন্সিরহাঁট, মূলপাড়া, বদরপর, আইটপাড়া, সুরঙ্গচর, বালুথুবা, কাইতাপাড়া, নূরপুর, সাচনমেঘসহ বেশকয়েকটি এলাককায় আজ পবিদ্র ঈদুল ফিতর।

বিএনএ/এসজিএন

The post দেশের বিভিন্ন স্থানে ঈদ আজ appeared first on Bangladesh News Agency (BNA) | Real Time True News.

You might also like
%d bloggers like this: