নিউজ ডেস্কঃ
আজ : ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, সোমবার প্রকাশ করা : সেপ্টেম্বর ৯, ২০২১

  • কোন মন্তব্য নেই

    বন্ধুত্বের বন্ধন অটুট থাকুক আজীবন

     এম এ আলম, চৌদ্দগ্রাম প্রতিনিধি: দীর্ঘদিনের বন্ধুত্ব ছিল মীর হোসেন সওদাগর (৬৮) ও সুধীর বাবুর (৭০)। দুজন আলাদা ধর্মাবলম্বী হলেও মনের মিল ছিলো অনেক। মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) রাতে মারা যান মীর হোসেন। বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) সকালে তার জানাজা হয়। জানাজা চলাকালীন সুধীর সবার পেছনে গাছের গুঁড়িতে বসে কাঁদছেন। জানাজায় অংশগ্রহণ করতে না পারলেও বন্ধুর প্রতি এমন অকৃত্রিম দরদ সবার হৃদয়কে স্পর্শ করে। মুহূর্তের মধ্যে বন্ধু মীরের প্রতি ভালোবাসা প্রদর্শনের এ ছবি ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে।

    এতে সারাদেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। সত্যিকারের বন্ধুত্বের বন্ধন কত শক্তিশালী হতে পারে তা নিয়ে বিস্তর আলোচনা চলছে কুমিল্লাসহ দেশজুড়ে। জানা যায়, কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার গুণবতী বাজারের ব্যবসায়ী মীর হোসেন সওদাগর ও সুধীর বাবু ছেলেবেলার বন্ধু। মীর হোসেন সওদাগর গুণবতী বাজারে বেশ কয়েকবছর ধরে মুদি ব্যবসা করতেন। সুধীর বাবুও ব্যবসা করতেন গুণবতী বাজারে। সে কারণে তারা থাকতেন একে অপরের কাছাকাছি। গুণবতী বাজারের ব্যবসায়ী রিপন জানান, মীর হোসেন বাজারে মুদি ব্যবসা করতেন। বুধবার সকালে গুণবতীতে তার বাড়ির কাছেই জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

    তিনি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। মীর হোসেন খুব ভালো মানুষ হওয়ায় তাকে শ্রদ্ধা করতেন এলাকার মানুষ। গুণবতী এলাকার বাসিন্দা মনির উল্লাহ জানান, আমি সবসময় মীর হোসেন ও সূধীর বাবুর বন্ধুত্বটা খেয়াল করতাম।ধর্ম আলাদা হলেও তাদের দুজনের মাঝে নিবির সম্পর্ক ছিলো। জীবন চলার পথে প্রত্যেকের জীবনে বন্ধু নামের বিশ্বাসী ও মজবুত একটি সম্পর্কের সৃষ্টি হয়ে যায়। যে সম্পর্ক কখনো লাভ অথবা ক্ষতির ভাবনায় গড়ে ওঠে না। কিছু মুহূর্ত আমাদের সামনে হাজির হয়ে যায়, যেখানে বন্ধুর গুরুত্ব অপরিসীম। যার কাছে মনের সব লুকানো কথা আস্থা ও বিশ্বাসের সঙ্গে খুলে বলা যায়। সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে টেনে তোলা হয় বিপৎসীমা থেকে নিরাপদ স্থানে।

    ভুল সিদ্ধান্তের অন্ধকার হতে ফিরিয়ে আলোকিত পথের সন্ধান দেখায়। সেই বিশ্বাসী সম্পর্কের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিকে বন্ধুত্বের আসনে বসিয়ে তাকে বন্ধু বলা যায়। বন্ধু হতে পারে এক থেকে একাধিক। আত্মার সঙ্গে আত্মার শক্তিশালী বন্ধন হলো বন্ধু। বন্ধু হতে পারে যে কেউ। বন্ধুত্বের কোনো বয়স নেই। পারিপার্শ্বিক অবস্থা, সততা, সহমর্মিতা, সহযোগিতা, সমবেদনা, মনের অনুভূতি প্রকাশ, ভয়কে জয় করায় নির্ভরশীল সঙ্গী হলো বন্ধু। কখনো কখনো পাড়াপড়শি, আত্মীয়স্বজন, অপরিচিত কেউ সামনে এসে দাঁড়ায় বন্ধুর ভূমিকায়। যৌথ উদ্যোগে হাত বাড়ায় শক্ত একটি ভিত্তি গড়ার আশায়। বন্ধুত্বের স্থায়িত্ব নির্ভরশীল সৎ ও মননশীল চিন্তার ওপর। যার বন্ধু আছে সে কখনো গরিব নয়। কথাটির বিপরীতে যুক্তি দাঁড় করানো বিন্দু সুযোগ নেয়। জীবন চলার পথে দুই প্রকার বন্ধু সামনে এসে দাঁড়ায়। সৎ বন্ধু ও অসৎ বন্ধু। সাদা মনের সৎ বন্ধু কখনো নিজ স্বার্থের ঝুলির দিকে তাকায় না।

    অসৎ ও বিকৃত মনের বন্ধু বুকে বুক মেলায় ঠিকই। কিন্তু তার এক হাত পিঠের ওপর রাখলে অন্য হাতে থাকে সুবিধাভোগী অস্ত্র। তার বিশ্বাসঘাতক বন্ধুত্বের অস্ত্র যেকোনো ভালো মনের চিন্তার দীর্ঘ পথ সীমিত করে থামিয়ে দেয়। অনেক সময় পরস্পরের প্রতি ভুল–বোঝাবুঝিতে অটুট বন্ধুত্বে ফাটল ধরার দুঃসময় সামনে এসে দাঁড়ায়। সেই মুহূর্তে সমসাময়িক খোলামেলা আলোচনা সাপেক্ষে বন্ধুত্বের সুন্দর সম্পর্কে টিকিয়ে রাখা সম্ভব হয়। ফেসবুকে অনেকে লেখেন, ‘আজ সেই বন্ধুর মৃত্যুর পর সুধীর বাবু জানাজার পেছনে উপস্থিত হয়ে অশ্রু ঝরাচ্ছেন। সত্যিকারের বন্ধুত্ব আসলেই এমন হয়। যে বন্ধুত্ব জাত দেখে না, ধর্ম দেখে না, ধনী-গরিবের ভেদাভেদ চিনে না। ’

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    © স্বত্ব আজকের কাগজ ২৪ ডট নেট ।২০১৮-২০২১
    সম্পাদক ও প্রকাশক: কামরুল হাসান চৌধুরি
    পিয়াস বিল্ডিং পূর্ব শাহী ঈদগাহ, টিবি গেইট , সিলেট
    ফোন: ০১৭১১০০০২১৪ , ইমেইল: ajkerkagoj24@gmail.com
    %d bloggers like this: