মালয়েশিয়ায় কঠোর লকডাউনেও দোকানপাট খোলার অনুমতি


নিউজ ডেস্কঃ প্রকাশের সময় : জুন ৬, ২০২১, ১০:১১ অপরাহ্ণ /                
মালয়েশিয়ায় কঠোর লকডাউনেও দোকানপাট খোলার অনুমতি

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সারা দেশে লকডাউন দিয়ে কঠোর নির্দেশনা জারি করেছে মালয়েশিয়া সরকার। অবশ্য এ নির্দেশনার মধ্যেও শর্ত সাপেক্ষে খুচরা দোকানপাট খোলা রাখার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার।

স্থানীয় সময় রোববার (৬ জুন) দেশটির বাণিজ্য ও ভোক্তা বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে তালিকাসহ এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়। যেখানে অন্তত ১৪টি খাতের তালিকা প্রকাশ করা হয়।

খাতগুলো হল- সুপারমার্কেট/হাইপারমার্কেট খাদ্য এবং পানীয়, ডিপার্টমেন্টাল স্টোর, ফার্মেসি, মিনি মার্কেট, মুদিদোকান, রেস্টুরেন্ট এবং খাবারের দোকান, লন্ড্রি, পেট্রল স্টেশন, পোষা প্রাণী ও তার খাদ্যের দোকান, আইওয়্যার এবং অপটিক্যাল স্টোর, হার্ডওয়্যার দোকান, যানবাহন কর্মশালা, রক্ষণাবেক্ষণ এবং গাড়ির খুচরা যন্ত্রাংশ, ই-কমার্স এবং শুধুমাত্র প্রয়োজনীয় পরিষেবা পণ্য বিভাগগুলির জন্য পাইকারি এবং বিতরণ।

উপরে বর্ণিত এই খুচরা খাতগুলোর জন্য প্রথমে সিআইএমএস-এমআইটিআই (আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়য়ের) সিস্টেমের মাধ্যমে ব্যবসায়ীদের দোকানপাট খোলার অনুমতি পত্রের জন্য আবেদন করার মাধ্যমে এটি কার্যকর করতে হবে। সেক্ষেত্রে মানতে হবে সুরক্ষা বিধি, ব্যবহার করতে হবে মাস্ক। বেচা-কেনায় সামাজিক দূরত্ব অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

এদিকে, দেশজুড়ে লকডাউনের ফলে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর দোকান ছাড়া বাকি সব বন্ধ। ফলে ধাক্কা খাচ্ছে অর্থনীতি। এই পরিস্থিতিতে নির্দিষ্ট কিছু শর্ত মেনে খুচরা দোকানপাট খোলার অনুমতি দিয়েছে বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়।

প্রসঙ্গত, মালয়েশিয়ায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গত ১ জুন থেকে ১৪ জুন পর্যন্ত চৌদ্দ দিনের জন্য ফুল লকডাউন ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করে দেশটির সরকার।

দেশটিতে আজ রোববার দুপুর পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ হাজার ২৪১ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৮৭ জনের। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ৬ লাখ ১৬ হাজার ৮১৫ জন। এখন পর্যন্ত দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন ৩ হাজার ৩৭৮ জন এবং সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন ৫ লাখ ২৬ হাজার ৮০৯ জন।