• বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
চৌদ্দগ্রামে সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার ৪ চৌদ্দগ্রাম পৌরসভা নির্বাচনে ১নং ওয়ার্ডে জনপ্রিয়তার শীর্ষে ডাঃ বেলাল হোসেন অনলাইন কমিউনিকেশন সোসাইটি গভঃ (রেজিঃ১৩৩৯১)কক্সবাজার জেলা কমিটি গঠিত রাজশাহীর তানোরে অস্ত্রসহ এক জন গ্রেফতার চৌদ্দগ্রামে কৃষকলীগের উদ্যোগে আনন্দ মিছিল মুন্সিরহাট হিরো মোটরসাইকেলের মেলা উদ্বোধন পেকুয়ায় ৩৬১কোটি টাকা ব্যয়ে বানৌজা শেখ হাসিনা সড়কের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন ওবায়দুল কাদের তারেক রহমানের ৫৬তম জন্মদিন উপলক্ষে এতিম শিশুর মাঝে যুবদলের খাবার বিতরণ সিলেট জেলা জিয়া সাইবার ফোর্সের উদ্যোগে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের জন্মদিন উদযাপন আল আমিন রায়পুরা ছাএলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা মুকির চৌধুরীকে নিয়ে প্রবাসী সাংবাদিক মিজানুর রহমান মিজানের আক্ষেপ

নিউজ ডেস্কঃ / ৫৩ বার পড়া হয়েছে
আপডেট : সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২০

আহমদ নাহিদঃমিজানুর রহমান মিজান। যুক্তরাজ্য প্রবাসী একজন খ্যাতিমান সাংবাদিক। বাংলাদেশি টিভি জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশন নর্থ ইংল্যাণ্ড এর সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন তিনি এবং সাবেক বাংলাদেশ হকি তারকা ও সমাজসেবক।

যুক্তরাজ্যের মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মিজানুর রহমান অধ্যয়ন করেছেন সিলেটে। পাইলট স্কুল থেকে সিলেট এমসি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ। সহপাঠি হিসেবে যাদের পেয়েছেন, তাদের অধিকাংশই আজ রাজনীতির রথি-মহারথি। বন্ধু তালিকায় রয়েছেন দেশের অনেক প্রতিথযশা বুদ্ধিজীবীও। নিজের ব্যক্তিগত টাইম লাইনে লিখেছেন কৈশোরের বন্ধু মুকির হোসেন চৌধুরী নিয়ে। লেখাটি পাঠকদের স্বার্থে তুলে ধরা হলো।

বাস্তবতা বড়ই নির্মম ও কঠিন। বিশেষ করে ৮০’ দশকের কথা বলছি-তখনকার সময়ে সম্ভ্রান্ত শিক্ষিত পরিবারের সন্তানেরা আসতো রাজনীতিতে। কিন্তু এখন সে অবস্থা নেই। আশি’র দশকের ঠিক বিপরীতে এখনকার অবস্থান। এখন সরে যাচ্ছেন ভালো মানুষ আর সেই জায়গায় যুক্ত হচ্ছেন পা’চাটা, পদলেহি এবং অধিকাংশই অশিক্ষিত মানুষগুলো। ফলে রাজনীতি এখন মানুষের কল্যাণে নয়, নষ্ট মানুষগুলোর কল্যাণে পরিচালিত হয় এবং তাদের হাতেই চলে গেছে দেশের নিয়ন্ত্রণ।

চলমান রাজনীতির ধারায় কদর কমছে সৎ লোকদের। ফলে সৎ ও যোগ্য মানুষের বর্তমান সমাজে কোন দাম নেই। উদাহরণ হিসেবে উল্লেখ করতে চাই-আমার বাল্যবন্ধু মুকির প্রসঙ্গ। পুরো নাম মুকির হোসেন চৌধুরী। সেই কৈশোর বয়সেই যাকে দেখেছি মুজিব আদর্শের এক অদম্য শক্তি হিসেবে। মুকির হোসেন চৌধুরী স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় শেষ করেও দমে থাকার পাত্র নয়। ছাত্রাবস্থায় ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন থেকে দলের প্রতি দেখিয়েছে আনুগত্য। নেতৃত্বের দক্ষতা এবং দূরদর্শীতার স্বাক্ষর বারবার প্রদর্শন করলেও চলমান রাজনৈতিক নেতৃত্বের কাছে পরাজিত হয় আদর্শবাদীরা। কথাগুলো বলার অর্থ হলো- সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটিতে ভেবেছিলাম নাম থাকবে মুকির হোসেন চৌধুরীর। কিন্তু দুর্ভাগ্য -সত্যিই ব্যথিত হয়েছি। যখন দেখলাম-পদলেহি রাজনীতি ধারণ না করা মুকির হোসেন চৌধুরীদের ঠাঁই হয়না কমিটিতে।

আমি শুধু ছোট্ট করে বলতে চাই, যারা মুকির হোসেনকে রাজনীতি থেকে বিতাড়িত করার জন্য যারা উঠে পড়ে লেগেছেন, তাদের অবশ্যই মনে রাখতে হবে “পদ খুব ক্ষনস্হায়ী” আজ আপনার কাল অন্যের। অন্যায় ভাবে ক্ষমতার বলে কোন মানুষ ক্ষমতায় বেশি দিন ঠিকে থাকতে পারে নি ? আর এটাতো সামান্য মহানগর কমিটি তাতে ও স্হান হয় নি ।

আপনাদের একবার ভাবা উচিত ছিলো যে মুকির কোন রাস্তার ছেলে না। যিনি অধ্যয়ন করেছেন দেশের সর্বোচ্চ ডিগ্রীধারী প্রতিষ্ঠান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং সেখান থেকেই মাষ্টার্স ডিগ্রী। যার রয়েছে পারিবারিক ঐতিহ্য। যার বাবা জন্মদিয়েছেন একই পরিবারে তিন তিন জন ডাক্তার।

আমি ও মুকির সিলেট পাইলট স্কুলের ছাত্র ছিলাম। সহজ সরল একজন মানুষ। যার ছিলনা কোনপ্রকার লোভ-লালসা। যে কোন ক্যাডার বাহিনী লালন করে না। যে সবাইকে সম্মান দিতে জানে , সেই মুকিরকে আপনারা মুল্যায়ন করেন নি। মুল্যায়ন করেন নি আরও অনেক ত্যাগী নেতাদেরকে। অতীত ইতিহাস একটু দেখুন। মুকির দলের জন্য ৪০ বছর ত্যাগ স্বীকার করেছে। তাদেরকে সাথে নিয়ে দল পরিচালনা বর্তমান সময়ে খুবই জরুরী । আমি বলতে চাই- দলকে সুসংগঠিত করুন,তখনই সমাজ পরিবর্তন হবে, সাথে সাথে দেশ ও জাতি উপকৃত হবে। মুকির সম্পর্কে লিখতে হলে অনেক কিছু লিখতে পারবো। আমার লেখা হয়তো সিলেটের কেউ পড়বে কিংবা কারো কান পর্যন্ত পৌঁছাতে পারবো না ?

সময় এবং সুযোগের যারা অপব্যবহার করছেন আল্লাহ তাদের অবশ্যই অবশ্যই একদিন তার অনুশোচনা করতে হবে। আপনারা আপনাদের সহযোদ্বাদের সাথে নিয়ে এগিয়ে যান।তখনই আপনারা আপনাদের গন্তব্যস্হলে নিশ্চিন্তে পৌঁছতে পারবেন। তা না হলে আপনাদের হোঁচট খেতে হবে।

পরিশেষে অনেক কিছু লিখতে ইচ্ছে করছে কিন্তু আজ আর লিখছি না। আমার লেখার কাউকে কটাক্ষ কিংবা ছোট করার জন্য লিখি নাই, অন্যায়ের প্রতিবাদ আপনাদের সম্মানের সাথে জানালাম। তারপর ও কেউ যদি কষ্ট পেয়ে থাকেন, আমাকে ক্ষমা করবেন। তবে মনে রাখবেন প্রতিভার বিকাশ ঘটবেই – ইনশা আল্লাহ ।


এই বিভাগের আরো খবর

নামাজের সময় সূচীঃ

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৫:০৫
  • ১১:৪৯
  • ১৫:৩৫
  • ১৭:১৪
  • ১৮:৩১
  • ৬:২০