বার্মিংহামে বিজনেস এ্যাওয়ার্ড পেলেন সিলেটের তরুণ ব্যবসায়ী রুবেল

2

বার্মিংহামে বিজনেস এ্যাওয়ার্ড পেলেন সিলেটের তরুণ ব্যবসায়ী রুবেলনিউজ ডেস্ক ::তৃতীয় বৃটিশ-বাংলাদেশী বিজনেস অ্যাওয়ার্ড-২০১৯ লাভ করেছেন সিলেটের তরুণ সমাজসেবী ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী যুক্তরাজ্য প্রবাসী কমিউনিটি নেতা আবদুল কুদ্দুস রুবেল। যুক্তরাজ্য প্রবাসী এই ব্যবসায়ী সে দেশে ব্যবসায়ীক ক্ষেত্রে অনন্য অবদান ও কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখায় বৃহস্পতিবার বার্মিংহামে তাকে এই সম্মাননায় ভূষিত করা হয়েছে। দক্ষিণ সুরমার আলমপুরের এই কৃতি ব্যক্তিত্ব একটি সমাজসেবী পরিবারের সন্তান। পারিবারিক সেবামূলক সংগঠন হাজী আবদুস শহীদ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। এই ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে এবং নিজের ব্যবসায়ীক আয়ের একটা অংশ দিয়ে সমাজের সুবিধাবঞ্চিত দরিদ্র অসহায় মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি শুধু একজন সফল ব্যবসায়ী নয়, তিনি মানবতার কল্যাণে নিবেদিত একজন কৃতি ব্যক্তিত্বও।
দেশ ফাউন্ডেশন ইউকে ও বৃটিশ-বাংলাদেশ বিজনেস অ্যাওয়ার্ড-এর উদ্যোগে গত বৃহস্পতিবার জমকালো এক আয়োজনের মাধ্যমে বিজনেস এ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করেন আব্দুল কুদ্দুস রুবেল।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান মিসবাউর রহমান। এবার বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ২৭টি অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়।
অনুষ্ঠানে শ্যাডো লিডার অফ দি হাউস ভেলরি ভাঁজ এমপি, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের প্রতিনিধি মাইক উড এমপি, ওয়েস্ট মিডল্যান্ডস এর এক্সিকিউটিভ মেয়র এনডি স্ট্রিট, ফিল বেনিয়ান এম ই পি, বার্মিংহামের লর্ড মেয়র মোহাম্মদ আফজল, ডাডলি মেয়র স্ট্যানলি, ওয়ালসল এর মেয়র পল বোট, ক্রয়ডনের মেয়র হুমায়ুন কবির, ব্রিটিশ আর্মির প্রতিনিধি কর্নেল জেমস সান্ডারল্যান্ড, বাংলাদেশ হাই কমিশনার, ব্রিটিশ বাংলাদেশ চেম্বারের প্রতিনিধিসহ ব্রিটেনের শীর্ষ স্থানীয় রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ও কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

বার্মিংহামে বিজনেস এ্যাওয়ার্ড পেলেন সিলেটের তরুণ ব্যবসায়ী রুবেল
আবদুল কুদ্দুস রুবেল জানান, জীবনে সততা ও নিষ্ঠার সাথে ব্যবসা বাণিজ্য পরিচালনা করার চেষ্টা করে গেছেন। ২০০৯ সালে যুক্তরাজ্যে জিও ফোন নামক একটি মোবাইল ফোনের দোকান প্রতিষ্ঠান করেন তিনি। পরবর্তীতে বিভিন্ন সিটিতে এই প্রতিষ্ঠানের শাখা সম্প্রসারিত হয়। তাঁর অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে ড্রিমস্পাস, লাক্সারী কিচেন এন্ড বাথ, জেমস ডিজাইন এন্ড রিপেয়ার লি: ও স্টাইল শোজ। এসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে প্রতি বছর প্রায় ১০ মিলিয়ন পাউন্ডের লেনদেন হয়ে থাকে। তিনি তাকে বিরল এই সম্মানে ভূষিত করায় আয়োজকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।
তিনি জানান- আজীবন মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখতে চান। তাদের পারিবারিক সংগঠন হাজী আব্দুস শহীদ ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে ইতোমধ্যে দরিদ্র পরিবারের শতাধিক ছেলে মেয়েদের বিয়েতে সহায়তা, দেড় শতাধিক দরিদ্র পরিবারকে ঘর নির্মাণে সহায়তা, চারশতাধিক মানুষকে ফ্রি চিকিৎসা সেবা প্রদান এবং দরিদ্র পরিবারের শিক্ষার্থীদের ভর্তি ফি, স্কুল ড্রেস তথা শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয়। গোটাটিকর দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে এবং জান আলী শাহ আদর্শ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রতি বছর গরীব ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের স্থায়ীভাবে অনুদান প্রদান করা হয়।
তাছাড়া শিক্ষার্থীদের স্কুল ব্যাগও প্রদান করা হয়। হারিয়ে যাওয়া একটি সুন্নতি চিকিৎসা হিজামা ক্যাম্পের মাধ্যমে শত শত গরীব রোগীদের ফ্রি চিকিৎসা প্রদান করা হয়। সম্প্রতি আত্মকর্মসংস্থানের জন্য প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত বেকার মহিলাদের সেলাই মেশিন প্রদান করা হয়। এসব কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।