পঙ্গুবরনের পথে দক্ষিন সুরমার বদরুল ভাই

আশরাফুল আলম আহাদঃ পরিচয়টা সিলেট কেন্দ্রিয় কারাগারে, দুজনের বাসস্হান ছিল মেডিকেল ০৪নং ওয়ার্ডে।
একি ওয়ার্ডে থাকার সুবাধে পাশাপাশি বেডে থাকতাম,দল পাগল ভাইটি সিনিয়র জুনিয়র সমন্নয় করে চলতে পছন্দ করতো,পছন্দ করতো দলের মধ্যে নির্যাতিত নীপিড়িত কর্মিদের।
পরিচয়ে প্রথম থেকে কেমন জানি অসুস্হ অসুস্হ মনে হত, পরিচয়কালিন সময় প্রশ্ন করলাম আসলে অসুস্হ কিনা?

ভাইটি উত্তর দিলো অসুস্হ ছিলাম না..অসুস্হ হয়েছি বিগত কয়েকদিন আগে…

তিনি জানালেন…
নেত্রী যখন বালুরট্রাকে অবরুদ্ধ, নেত্রীর বাসার যখন বিদ্যুৎ লাইন অবৈধ সরকার কতৃক কেটে দেওয়া হয়, নেত্রীকে যখন খাবার দিতে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়, সর্বোপরি গনমাণুষের নেত্রীকে যখন জনগন থেকে বিছিন্ন করে দেওয়া হয় তখন ক্ষুভে, দুঃখে, অভিমানে কিছু বন্ধুবান্ধব ও জুনিয়রদের নিয়ে রাজপথে নেমে এর প্রতিবাদ জানান, প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টার করেন।

দক্ষিণ সুরমার রাজপথে প্রতিবাদ /প্রতিরোধের সময় যৌতবাহীনি ঘিরে ফেলে এবং এক পর্যায়ে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।
গ্রেফতার পরবর্তি সময়ে পুলিশ কতৃক রাজপথে নির্যাতন চালানো হয়, যেই নির্যাতনে প্রথমেই দুই পা ভেঙ্গে দেওয়া হয়।

পা ভাঙ্গা অবস্হায় গাড়ির চাকার সাথে পিষ্ট করার পায়তারা করা হয় কিন্তু আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামিনের অশেষ দয়ায় কিছু সাংবাদিক ব্যাপারটি দেখে ফেলায় নিশ্চিত মৃত্যুর পথ থেকে বেচে যান প্রিয় বদরুল ভাই।

পরের দিন একটি বিষ্কোরক মার্ডার মামলা দিয়ে আদালতে তুলে আবারো রিমান্ড চাওয়া হয়, আদালত রিমান্ড মঞ্জুর করলে থানায় নিয়ে দফায় দফায় চালানো হয় নিষ্টুর নির্যাতন।
যেই নির্যাতন মধ্য যুগের বর্বরতাকেও হার মানাবে….

রিমান্ড নির্যাতন শেষে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়, কারাগারে থাকতে হয় প্রায় আট মাস,

এই আট মাসেই বিনা চিকিৎসায় দেহের মূল্যবান যন্ত্রাংশ বিকল হয়ে যায়।
বিকল দেহ নিয়ে জামিনে বেরিয়ে মায়ের অতি যত্নের গহনা বাবার কষ্টাজিত হালের বলদ বিক্রি করে চিকিৎসার উদ্ধোগ নেন।
ডাক্তাররা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্হ দু-পায়ের ভবিষ্যৎ অন্ধকার,ভবিষ্যতে হয়ত এর চমর মূল্য দিতে হবে।
একটাই পথ দেশের বাহিরে গিয়ে চিকিৎসা কিন্তুু টাকা কই?মা-বাবার কষ্টাজিত টাকাতো সবই শেষ….

এই বদরুল ভাইয়ের মত দু চার কর্মির পিছনে দু-চার লক্ষ টাকা খরচ করার মত লোকের বিএনপিতে অবাব নেই কিন্তু কেউ এগিয়ে আসেনি….!!

সুবিধাবাদী নেতারা খোয়াব দেখে বদরুলদের মত কর্মিদের রক্তের সিঁড়িঁ বেয়ে বিএনপি ক্ষমতায় যাবে আর তারা ভাইয়া গ্রুপ ঘটন করে অবৈধ পন্তায় কোটি কোটি টাকা উপার্জন করবে?
শালাদের স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাবে কেননা তারা বদরুলদের চোখে দেখে ও না দেখার ভান করে..
এই দল আজ হাজারো বদরুলদের অভিশাপে অভিশপ্ত।
যতদিন এই দল নির্যাতিত, নীপিড়িত কর্মিদের মূল্যায়ন করবে না ততদিন হয়ত মাজা ভাংগা কোমর নিয়ে ঘুরে দাড়াতে পারবেনা।

পরিশেষে বদরুল ভাইয়ের সুস্হতা ও দীঘ্রায়ু কামনা করি।।
পঙ্গুবরনের পথে দক্ষিন সুরমার বদরুল ভাই

সংবাদকর্মি নিয়োগ চলছেঃ-

দেশের সকল জেলা উপজেলাইয় সংবাদকর্মি নিয়োগ চলছে । আমাদের সাথে কাজ করতে সরাসরি যোগাযুগ করুন ০১৭১১০০০২১৪