প্রবাসীদের হোম কোয়ারান্টাইনের ব্যাপারে সচেতন করতে ম্যাজিষ্ট্যাটের নেতৃত্বে অভিযান

0

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাস নিয়ে সারা বিশ্বের ন্যায় প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেট মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে। প্রতিদিন ইংল্যান্ড, আমেরিকা ও মধ্যপ্রাচ্য থেকে প্রবাসীরা সিলেটে এসে ঢুকছে।

নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্যাট সুমাইয়া বেগমের নেতৃত্বে প্রবাসী সনাক্তকরণে পুলিশের বিশেষ টিম ও মেডিকেল টিম সিলেটের বিভিন্ন এলাকায় আগত প্রবাসীদের বাসায় বাসায় গিয়ে হোম কোয়ারান্টাইন এর ব্যাপারে সরকারি নির্দেশনার ব্যাপারে অবগত করেন।

আজ দর্জিবন্ধ ১২০ বসুন্ধরা, পূর্ব শাহী ঈদগাহ, ৬৯ আল-ইসলাহ পূর্ব বালুচর, ৫০ এভারগ্রীন ঝেরঝেরীপাড়া এবং ৭৯ এভারগ্রীন ঝেরঝেরীপাড়ায় ইংল্যান্ড প্রবাসীদের বাসায় আসে।

অন্যান্যদের বাসার ঠিকানা ঠিক থাকলেও ৫০ এভারগ্রীন ঝেরঝেরীপাড়ায় আসলে জানা যায় সংশ্লিষ্ট প্রবাসী ভুল ঠিকানা দিয়েছেন। ৬৯ আল- ইসলাহ পূর্ব বালুচরের ঠিকানা ঠিক থাকলেও বাসায় গিয়ে জানা যায় সংশ্লিষ্ট প্রবাসী জগন্নাথপুর নিজ বাড়ীতে চলে গেছেন। ৭৯ এভারগ্রীন ঝেরঝেরীপাড়ায় গোছুল আলম চৌধুরীর বাসায় গিয়ে জানা যায়, উনি গতকাল ১.৩০ মিনিটে ইংল্যান্ড থেকে আসেন। উনার বয়স ষাটোর্ধ। নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্যাট বলেন, গোছুল আলম চৌধুরীর মধ্যে করোনা ভাইরাসের লক্ষ্মণ পাওয়া গেছে। তবে উনাকে হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার জন্য কঠোরভাবে নির্দেশ দেয়া হয়। বালুচর এলাকার আমেরিকা প্রবাসী এক মহিলা হোম কোয়ারান্টাইনের সরকার প্রদত্ত নির্দেশনা না মানায় নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্যাট তাৎক্ষণিকভাবে ৫০০০ টাকা জরিমানা করেন।

নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্যাট সুমাইয়া বেগমের সাথে অভিযানে ছিলেন এএসআই প্রদীপ, কনস্টেবল অনুপম, কনস্টেবল দীপ এবং সিটি কর্পোরেশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং পাওয়ার নিউজ বিডির আহমদ নাহিদ।

রায়নগরে অভিযানকালে এই টিমকে সহযোগিতা করেন ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এএসএম শওকত আমিন তৌহিদ।