ছাত্রলীগের নয় কর্মীকে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার

5

শিক্ষা-ক্যাম্পাসঃঃ শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাজিব সরকারের উপর হামলার ঘটনায় শাখা ছাত্রলীগের ৯ নেতা-কর্মীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. ইশফাকুল হোসেন স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে এ তথ্য জানানো হয়। বহিষ্কৃত সকলেই শাখা ছাত্রলীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক সাখাওয়াতের অনুসারী। গত ২৩ মার্চ বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের যুগ্ম-সম্পাদক রাজীব সরকারের উপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা করে সাখাওয়াত গ্রুপের কর্মীরা।

বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীরা হলেন, ইংরেজি বিভাগের মো. রিশাদ (২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষ) ইন্ডাস্ট্রিয়াল এন্ড প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং (আইপিই) বিভাগের মাহবুব আল আমিন (২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষ), বাংলা বিভাগের কাওসার আহমেদ সোহাগ (২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষ), লোক প্রশাসন বিভাগের সুমন মিয়া (২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষ), লোক প্রশাসন বিভাগের সুজন বৈষ্ণব, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ইফতেখার আহমদ রানা (২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ), সমুদ্র বিজ্ঞান বিভাগের আমিনুল ইসলাম (২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষ), লোকপ্রশাসন বিভাগের আবদুল বারী সজীব (২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষ), সমাজর্কম বিভাগের মুস্তাকিম আহমেদ (২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষ)। হামলার পর গত ২৫ মার্চ জালালাবাদ থানায় রেজিস্ট্রার মো. ইশফাকুল হোসেন বাদি হয়ে বহিষ্কৃতদের আসামি করে মামলা করেন। এই মামলায় ছাত্রলীগের সহসভাপতি মুস্তাকিম আহমেদ মুস্তাক আটক রয়েছেন।

রেজিস্ট্রার বলেন, ‘তারা অপরাধী। তাদের উপর মামলা আছে। তারা সাধারণ শিক্ষার্থীদের মতো ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নিতে পারে না। তাই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাদের সাময়িক বহিষ্কার করেছে। তাদের কেন শাস্তি প্রদান করা হবে না তা জানতে চেয়ে ৭ কার্যদিবসের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। তাদের জবাবের ভিত্তিতে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

প্রসঙ্গত, গত ২৩ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে শাবি শাখা ছাত্রলীগের বাংলা বিভাগ কমিটির যুগ্ম সম্পাদক রাজীব সরকারের উপর ধারালো অস্ত্র ও জিআই পাইপ দিয়ে হামলা চালায় বহিষ্কৃতরা। রাজীবকে গুরুতর আহত অবস্থায় সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়। তার মাথা ও পিঠে ৭০টির মতো সেলাই দিতে হয়েছে।