তাহিরপুরে হাওরের একমাত্র বোর ফসল রোপণের জন্য,পানি নিষ্কাশনের দাবী

2

সুনামগঞ্জ তাহিরপুর প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জ তাহিরপুর উপজেলার হাওর বষ্টিত নিম্নাঞ্চলে শতবছরের ১টি খাল মাটি ফেলে ভরাট করায় পানি নিষ্কাশনের একমাত্র পথটি বন্ধ হয়ে গেছে। এতে প্রায় অর্ধ হজার কৃষকের ফসলি জমিতে স্থায়ী ভাবে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে থাকে । ফলে আসন্ন বোরো আবাদ অনিশ্চিত হয়ে পড়ে যাবে। উপজেলার হাওরাঞ্চলের শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত চাষিরা জলাবদ্ধতা নিরসণের জন্য তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনে লিখিত আবেদন করেছেন।
চাষিদের আবেদনে জানা যায়, উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের হতদরিদ্র চাষিদের বনুয়া, পালই, কাউট্রাপুরা, শ্রীয়ারগাও, নাইন্দাসহ উল্লেখিত হাওরগুলোতে একমাত্র বোর ফসল রোপণ করে সারা বছরের জীবীকা নির্বাহ করেন। কিন্তু উল্লেখিত হাওরগুলোর পানি নিষ্কাশনের জন্য ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের দক্ষিণ পাশে নাউটানা নামক একটি শতবছের পুরনো খাল রয়েছে,খালটিতে বাঁধ নির্মান করায়, উল্লেখিত হাওর গুলোর পানি নিষ্কাশ বন্ধ হয়ে যায়।এতে করে তারা বোর ফসিল রোপনে প্রস্তুতি নিতে পারছেনা। তারা জানান আমাদের অর্ধহাজার চাষি জমিতে বোর ধান আবাদ করে সারা বছরের সংসারের খরচের জোগান দেয়।এমতাবস্থায় পানি নিষ্কাশ না হলে শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের হাওরপারের প্রায় ৮,টি গ্রামের অর্ধহাজার চাষি জমিতে বোর ধান রোপণ করতে পারবেনা বলে উনারা জানান। তারা বলেন এক মাত্র বোর ফসল না করতে পারলে তাদের জীবীকা নির্বাহ করার আর কোন পথ থাকবেনা। এমতাবস্থায় হতদরিদ্র হাওরপারের হতদরিদ্র কৃষকদের বোর ফসল রোপণ করার স্বার্থে, বনুয়া, পালই, কাউট্রাপুরা, শ্রীয়ারগাও, নাইন্দাসহ উল্লেখিত হাওরগুলোর পানি নিষ্কাশ করার দাবীতে গতকাল সোমবার (২১,আগস্ট) তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ ও তাহিরপুর উপজেলা প্রশাসনের বরাবর লিখিত আবেদন করা হয়েছে ।

এ ব্যাপারে হাওরপারের কৃষক নজরুল ইসলামসহ অনেকেই জানান আমরা হাওরাঞ্চলে হতদরিদ্র কৃষক আমাদের একমাত্র বোর ফসিল যাহা আমাদের সারা বছরের জীবীকা নির্বাহ একমাত্র অবলম্বন, পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় আমরা বিপাকে বঞ্চিত হতে হচ্ছে একমাত্র ফসল উৎপাদন হতে । তাই ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের দক্ষিণ পাশে নাউটানা নামক স্থানে খালকেটে পানি নিষ্কাশনের দাবী জানাই।

এ ব্যাপারে তাহিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল এর মোবাইল ফোনে একাধিক বার চেষ্টা করলেও উনি ফোন রিচিব না করায় আলাপ করা সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ভারপ্রাপ্ত ভূমি মুনতাসির হাসান পলাশ এর কাছে জানতে চাইলে উনি বলেন এ ব্যাপারে আমি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে রিপোর্ট দিতে বলেছি, পানি নিষ্কাশ করলে কি হবে না করলে কি হবে, রিপোর্টের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।