চৌদ্দগ্রামে মুক্তিযোদ্ধা মোখলেছ মিয়ার উপর হামলার ঘটনায় প্রতিবাদ সভা

কুমিল্লা প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে পৌর আ’লীগের সহ-সভাপতি ও পৌর কাউন্সিলর বীর মুক্তিযোদ্ধা মোখলেছ মিয়ার উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় এবং অবিলম্বে অভিযুক্ত আসামীদের গ্রেফতারের দাবিতে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়ছে। রবিবার (১৮ আগষ্ট) বিকালে পৌর এলাকার সোনাকাটিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন সড়কে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য প্রদান করেন উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর মো. মেয়র মিজানুর রহমান। প্রবীন আ’লীগ নেতা আলী আহম্মেদ বি.কম এর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক এএসএম শাহীন মজুমদার, পৌর আওয়ামী লীগ নেতা ইদ্রীস মিয়াজী, কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম কামাল, মো. সাইফুল ইসলাম পটোয়ারী, মো. মফিজুর রহমান, মো. ইফনুস মিয়া, মো. শাহীন ও মহিলা কাউন্সিলর নাসিমা খাতুন, যুবলীগ নেতা আবুল হাশেম, আব্দুস সাত্তার, মাস্টার মীর হোসেন মীরু। এসময় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ স্থানীয় গণ্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। সভায় বক্তারা কাউন্সিলর মো. মোখলেছ মিয়ার উপর বর্বরোচিত সন্ত্রাসী হামলার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে হামলাকারীদেরকে গ্রেফতারের জন্য সংশিষ্ট প্রশাসনের প্রতি আহবান জানান। উল্লেখ্য, এর আগে গত বৃহস্পতিবার (১৫ আগষ্ট) বিকালে উপজেলার পৌরসভাধিন সোনাকাটিয়া গ্রামের সন্ত্রাসী ও মাদকসেবী মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃতে একদল সন্ত্রাসী প্রাণ নাশের উদ্দেশ্যে পৌর কাউন্সিলর মো. মোখলেছ মিয়ার উপর হামলা করে, সভায় বক্তরা বলেন, ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিল মুক্তিযোদ্বা মোখলেছুর রহমান উপর সন্ত্রাসী
হামলা ইতিহাসের জঘন্যতম অধ্যায়। যা ইতিপূর্বে কখনো হয়নি, হামলার সঙ্গে জড়িত মোস্তাফিজকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিরর দাবি জানান বক্তারা হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানিয়ে দোষীদের শাস্তির দাবি করেন। পরে স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে কুমিল্লা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে অবস্থার অবিনতি হলে তাকে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নিয়ে যায় তার পরিবার। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সেখানে তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এঘটনায় হামলার শিকার কাউন্সিলর মোখলেছ মিয়ার ছেলে হারুনুর রশিদ মাসুম বাদী হয়ে পাঁচ জনের নাম উল্লেখ করে তাৎক্ষণিক চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এঘটনায় এখন পর্যন্ত কোন আসামী গ্রেফতার হয়নি। এবিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মিলন মিয়া জানান, আসামীদের গ্রেফতারের উদ্দেশ্যে একাধিক অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। আসামীদের ধরতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

চৌদ্দগ্রামে মুক্তিযোদ্ধা মোখলেছ মিয়ার উপর হামলার ঘটনায় প্রতিবাদ সভা

সংবাদকর্মি নিয়োগ চলছেঃ-

দেশের সকল জেলা উপজেলাইয় সংবাদকর্মি নিয়োগ চলছে । আমাদের সাথে কাজ করতে সরাসরি যোগাযুগ করুন ০১৭১১০০০২১৪