টাংগুয়ার হাওরের সাগর রপি ঢেউয়ের কবলে বংশিকুন্ডার শতবছরের পুরনো কবরস্থান

1

আহম্মদ কবির টাংগুয়ার হাওর হতেঃ সুনামগঞ্জ মধ্যনগর থানার দক্ষিণ বংশিকুন্ডা ইউনিয়নের, বংশিকুন্ডা নিশ্চিন্তপুর সহ একাধিক গ্রামের প্রায় ছয়শতাধিক পরিবারের, একমাত্র কবর স্থানটির বন্যার কবলে পরে অত্যন্ত বেহাল দশা। যে স্থানে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের শেষ ঠিকানার এই স্থানের এতোটাই বেহাল দশা যেন দেখার কেউ নেই।

বর্ষা মৌসুমে সাগর রুপি টাংগুয়ার হাওরের উত্তাল ঢেউ এসে আছড়ে পাড়ে এর গায়ে। এতে করে শতবছরের কবরস্থান টির চারপাশের মাটি ভেঙে একাকার। সেই সাথে আসপাশের বাড়িঘর থেকে ময়লা আবর্জনা এসে কবরস্থানের পরিবেশ নষ্ট করছে। দেখে অনেকটা মনে হয় যেন গোচারণ ভুমি!

মধ্যনগর থানার দক্ষিণ বংশিকুন্ডা ইউনিয়নের বংশিকুন্ডা গ্রামের মঞ্জু মিয়া বলেন, আমি গত ১৫ই,মার্চ ২০১৮ইং এলাকাবাসীর পক্ষে করবস্থান কে সাগর রুপি টাংগুয়ার হাওরের উত্তাল ঢেউয়ের কবল থেকে রক্ষার জন্য, সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের বরাবর একটি লিখিত আবেদন করেছিলাম, এতে আজও কোন সুরাহা পাইনি। কিন্তু গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টি ও উজান থেকে আসা পাহাড়ি ঢলে এবং টাংগুয়ার হাওরের উত্তাল ঢেউয়ে, আমাদের একাধিক গ্রামের প্রায় ৬০০শত পরিবারের শতবছরের পুরনো কবরস্থানটি অনেকটাই ভেঙ্গে নিয়ে গেছে।স্থানীয় গ্রামবাসীর উদ্যোগে কচুরিপানা দিয়ে খানিকটা রক্ষা করলেও, এখনো কবরস্থানটি রয়েছে ঝুঁকিপূর্ণ। এতে কবরস্থানটি হাওরের বিশাল ঢেউয়ের কবল থেকে রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে জনপ্রতিনিধি সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সদয় দৃষ্টি কামনা করি।

এব্যাপারে বংশিকুন্ডা দক্ষিণ ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা সানোয়ার হোসেন খোকা বলেন, আমি শিশুকাল থেকেই দেখে আসছি এই শতবছরের পুরনো কবরস্থানটির ভাঙা-গড়ার খেলা, বর্ষা হলেই টাংগুয়ার হাওরের উত্তাল ঢেউ ভেঙ্গে নেয়, আবার হেমন্তকালে মেরামত করা হয়। এই ভাবে চলতে থাকলে কোন একসময়, প্রায় ছয়শতাধিক পরিবারের একমাত্র কবরস্থানটি ঢেউয়ের কবলে হারিয়ে যাবে। তখন এখানকার মুসলমানদের মৃত্যুর পরে হাওর অথবা নদীর পানিতে ডুবিয়ে দেওয়া ছাড়া আর কোন উপায় থাকবেনা। এমতাবস্থায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সর্বস্তরের জনপ্রতিনিধি এবং সরকারি কর্মকর্তাগনের সহযোগিতায় স্থায়ী কোন ব্যবস্থা নেওয়ার জোড়ালো দাবী জানাই।

দক্ষিণ বংশিকুন্ডা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য সাইকুল ইসলাম বলেন শতবছরের পুরনো এই কবরস্থানটি, প্রতিবছরই বর্ষা হলেই টাংগুয়ার হাওরের উত্তাল ঢেউ ভেঙ্গে নিয়ে যায় কবরস্থাটির মাটি।কবরস্থানটিকে ঢেউয়ের কবল থেকে রক্ষা করতে স্থায়ী কোন ব্যবস্থা নেওয়া একান্ত প্রয়োজন।