তাহিরপুর টাংগুয়ার হাওর সংলগ্ন বন্যা কবলিত এলাকার আতঙ্কের নাম সাগর রুপি ঢেউ

আহম্মদ কবির তাহিরপুর হতেঃ মন ভালো নেই তাহিরপুর টাংগুয়ার হাওর সংলগ্ন নিম্নাঞ্চলের বন্যায় কবলিত মানুষের। বন্যার পানি বাড়তে বাড়তে ঘরের ভেতর দখল করে নিয়েছে । মেঝেতে ১ফুট পানি, কোনমতে খাটের উপর ছেলে মেয়েদের নিয়ে দিনাতিপাত করেছিলেন। কিন্তু টাংগুয়ার হাওরের বিশাল ঢেউ ঘরের বেড়া আর ভিটার মাটি ছাড়িয়ে নিয়ে যাচ্ছে। মনে হয় ঘরবাড়ি ছেড়ে আশ্রয়কেন্দ্রে ছুটতে হবে। টাংগুয়ার হাওর তীরের তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের ইসলাম পুর গ্রামের তছলিম মিয়া (৪০) এভাবেই জানলেন পানির সাথে লড়াই করে টিকে থাকার গল্প। টাংগুয়ার হাওর তীরে জয়পুর গ্রাম সংলগ্ন তছলিম মিয়ার বাড়ি। তিলে তিলে বাড়িটি গড়েছিলেন। বন্যার ভয়াবহতা চিন্তা করেই সমতল থেকে ১০-১২ ফুট উচ্চতায় বাড়ির ভিটে বাধেন। তার আরও উপরে তৈরি করেন বসতঘর। উনি নাবালক ২টি ছেলে ও ৩টি মেয়ে সন্তানের জনক । স্ত্রীকে সন্তান নিয়ে বর্তমান বাড়িতে বসবাস করতেন তিনি । বন্যার সাথে সুবিশাল ঢেউ তছলিম মিয়ার দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টায় নির্মিত বসবভিটা থেকে উচ্ছেদ করার উপক্রম। অসহায় তছলিম মিয়া ঘরবাড়ি ছেড়ে কোথায়ও যেতে চাননি। স্ত্রী সন্তান ও কিছু মালামাল পাশের গ্রামে সজনদের বাড়ি পাঠিয়ে, উন ১টি খাট রশি দিয়ে ঘরের তীরের সাথে বেধে শূন্যের উপর করে, বসে শুয়ে কোন মতে খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করছেন। পানির প্রচন্ড ঢেউ আর হাওরের বাতাস প্রতিনিয়ত তাদের তাড়া করছে। দীর্ঘদিন থেকে পানিবন্দি থাকলেও ত্রাণ বা কোন সহযোগিতা সংবাদ প্রকাশের পুর্ব পর্যন্ত পাননি তছলিম মিয়া। জয়পুর গ্রামের লায়েছ মিয়া,জয়পুর নতুন হাটির রেহানা বেগম, ইসলামপুরের সেনারুল মিয়া, ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের সাইফুল ইসলাম, আনোয়ার মিয়া, সহ অনেকেই জানান, তাদেরও একই অবস্থা। বন্যা যতটা না দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে, তার চেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে টাংগুয়ার হাওরের এই উত্তাল ঢেউ।এই বন্যা কবলিত এলাকার বর্তমান আতংক হলো এই সাগর রুপি উত্তাল ঢেউ। ঢেউয়ের কবল থেকে বাড়িঘর রক্ষায় এখন তাদেও সংগ্রাম করতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত ।
বিশেষ করে টাংগুয়ার হাওরের দক্ষিণ ও পশ্চিম তীরের এই উত্তাল ঢেউ মানুষের বাড়িঘর তছনছ করে দিচ্ছে।শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের লামাগাও গ্রামের ফটিক মিয়া জানান, বন্যায় রাস্তাঘাট গেলো, এবার ঢেউয়ের কবল থেকে বাড়িঘর মনে হয় আর রক্ষা করা সম্ভব হবে না। ঢেউয়ের কবল থেকে রক্ষার জন্য মানুষ কচুরিপনা দিয়ে বাড়িঘর রক্ষার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।
তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ সরকার জানান, ইতিপূর্বে টাংগুয়ার হাওরের উত্তাল ঢেউ এই ইউনিয়নের রাস্তাঘাট ভেঙে লন্ডভন্ড করে দিয়েছে। এখন মানুষের বাড়িঘর ভাঙছে। রক্ষার কোন উপায় নেই প্রকৃতির দয়া ছাড়া। উনি বলেন বন্যার জন্য উপজেলায় কন্ট্রোল রুম খোলা রয়েছে বন্যার্ত দের যোগাযোগের জন্য, উনি আর বলেন বন্যা কবলিত এলাকায় সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে, বিশুদ্ধ পানি,জ্বালানি, গোখাদ্য, বন্যার্তদের জন্য প্রয়োজন, শুকনো খাবার, পানি বিশুদ্ধ করন ট্যাবলেট, এবং গবাদিপশুর জন্য গোখাদ্য। উনি বলেন আমি আগামীকাল আমার ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ হতে আমার ইউনিয়নের বন্যার্তদের মধ্যে, জি,আর চাউল বিতরণ করবো। উনি যারযার অবস্থান থেকে বন্যা মোকাবেলা করার আহবান জানান।

সংবাদকর্মি নিয়োগ চলছেঃ-

দেশের সকল জেলা উপজেলাইয় সংবাদকর্মি নিয়োগ চলছে । আমাদের সাথে কাজ করতে সরাসরি যোগাযুগ করুন ০১৭১১০০০২১৪