তাহিরপুরে পর্যটকদের আগমন লক্ষ্যনীয় হলে-ও বাড়েনি কোন সুযোগ সুবিধা

আহম্মদ কবির, তাহিরপুরঃসুনামগঞ্জের তাহিরপুর টাংগুয়ার হাওর পরিবেশ বান্ধব পর্যটনসহ পার্শ্ববর্তী পর্যটন স্পট গুলোতে, পর্যটকদের আগমন লক্ষ্যনীয় হলে-ও বাড়েনি কোন সুযোগ সুবিধা,পালন হয়নি নিয়মনীতি।

জানাযায় সুনামগঞ্জ তাহিরপুর টাংগুয়ার হাওর সহ একাধিক পর্যটন স্পটগুলোতে,প্রকৃতির সৌন্দর্য্য দেখতে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত হতে এমনকি দেশের বাহির হতেও, নানা বয়সী পর্যটকদের আগমন দিনদিন বেড়েই চলছে। কিন্তু তাদের থাকা খাওয়া, নিরাপত্তা, এমনকি স্যানিটেশনসহ নানান সমস্যা রয়েছে টাংগুয়ার হাওর সহ একাধিক পর্যটন স্পটের প্রকৃতির সৌন্দর্য্য দেখতে আসা পর্যটকদের। তাহিরপুর উপজেলার সড়কপথে যোগাযোগের ব্যবস্থা না থাকায়, তাহিরপুর সদরে এসে পর্যটকগন,যে যার চাহিদামতো ছোট-বড় ইঞ্জিন চালিত নৌকা ভাড়া করে,টাংগুয়ার হাওরে আসেন, আর ঐসব নৌকায় নাম মাত্র টয়লেটের ব্যবস্থা থাকলেও বেশীর ভাগ নৌকায় টয়লেট করার কোন ব্যবস্থা নেই, রাজধানী ঢাকা হতে আগত শিক্ষার্থী নাইমুল হাসা টাংগুয়ার হাওরে এসে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে একটি শৌচাগার খুঁজে বিরক্তিকর হয়ে স্থানীয় একজনের সহায়তায় জয়পুর জামে মসজিদের টয়লেট ব্যবহার করেন।এসব বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ কার্যকরী কোন পদক্ষেপ না নেওয়ায়। টাংগুয়ার হাওরে ঘুরতে আসা পর্যটক ও দর্শনার্থীদের মাঝে চরম ক্ষোব বিরাজ করছে।
স্থানীয়দের তথ্যসুত্রে জানাযায়,গত এক যুগেরও বেশী সময় ধরে টাংগুয়ার হাওরের প্রকৃতির সৌন্দর্য্য দেখতে প্রতিদিনই কমবেশি পর্যটকদের আগমন ঘটে। যাহা দিনদিন বেড়েই চলছে, কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অবহেলা জনিত কারণে, এই এলাকায় পর্যটক বাড়লেও,বাড়েনি কোন সুযোগ সুবিধা।
টাংগুয়ার হাওর কেন্দ্রীয় সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতির সম্মানিত সদস্য ও ইক্যু-ট্যুরিস্ট গাইড অকিল তালুকদার বলেন,টাংগুয়ার হাওরে প্রতিদিনেই হাজার হাজার পর্যটক আসে টাংগুয়ার হাওরে, কিন্তু সম্মানিত পর্যটকগনের নিরাপত্তার বিষয়ে আমরাও থাকি দুশ্চিন্তায়। টাংগুয়ার হাওরে সম্মানিত পর্যটকগনের ভ্রমণের সুবিধার্তে, হাওরপাড়ের সৎসাহসী কিছু যুবকদের প্রকল্প ব্যবস্থাপনায় প্রশিক্ষণ দিয়ে গাইড নিয়োগ করা হয়েছে।কিন্তু সম্মানিত পর্যটকগন, গাইড সাথে না নিয়েই হাওরে প্রবেশ করেছেন। যার ফলে উনাদের অজান্তেই উনারা পর্যটন এলাকা পরিবেশের ক্ষতিকর বিভিন্ন কাজ করে যাচ্ছেন। অন্যদিকে টাংগুয়ার হাওরে আসা পর্যটকগণ, পর্যটন এলাকার বিভিন্ন স্পট সম্পর্কে ধারণা না নিয়ে তাদের ইচ্ছামতো চলাফেরায় মাঝেমধ্যে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন । আগত পর্যটকদের জন্য আমরা কান পেতে থাকি হাওরের দিকে কোথায় কি হয়, উনি বলেন পর্যটক ও দর্শনার্থীদের জন্য টুরিষ্ট পুলিশের ব্যবস্থা করা হলে ভাল হত নিরাপত্তার থাকত।
স্থানীয় সুশীল সমাজ প্রতিনিধিদের তথ্যমতে জানাযায়, টাংগুয়ার হাওরের প্রকৃতির সৌন্দর্য্য দেখতে হাওরে অনেক টুরিষ্ট আসেন, কিন্তু স্থায়ী ভাবে হোটেল,মোটেল বা পাবলিক টয়লেট টুরিষ্টদের অনেক সমস্যা হয়। এছাড়াও নিরাপত্তার জন্য টুরিষ্ট পুলিশ থাকলে অনেক ভাল হত। না হলে অনেক পর্যটক ও দর্শনার্থী মুখ ফিরিয়ে নিবেন।
টাংগুয়ার হাওর কেন্দ্রীয় সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতির একাধিক প্রতিনিধি জানান, টাংগুয়ার হাওরের প্রকৃতির সৌন্দর্য্য দেখতে আসা পর্যটকদের সুবিধার্তে আমরা প্রকল্পের সহযোগিতায় স্থানীয় কিছু শিক্ষিত সৎসাহসী যুবকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ট্যুরিস্ট গাইড হিসাবে নিয়োগ দিয়েছি। কিন্তু হাওরে আসা পর্যটকগণ গাইড না নিয়ে, তাদের ইচ্ছামতো হাওরে প্রবেশ করছেন এতে করে হাওরে পরিবেশের মারাত্মক ভাবে ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা হতে পারে। এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ অতিদ্রুত একটি নিয়মনীতির মধ্যে স্থানীয় প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত গাইডদের সাথে নিয়ে হাওরে প্রবেশ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার দাবী জানাই।

সংবাদকর্মি নিয়োগ চলছেঃ-

দেশের সকল জেলা উপজেলাইয় সংবাদকর্মি নিয়োগ চলছে । আমাদের সাথে কাজ করতে সরাসরি যোগাযুগ করুন ০১৭১১০০০২১৪