খাগড়াছড়িতে সপ্তাহব্যাপী বৈসু উপলক্ষে ত্রিপুরা সংস্কৃতি মেলা উদ্বোধন

দহেন বিকাশ ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি জেলা প্রতিনিধি:খাগড়াছড়িতে প্রথমবারের মতো ত্রিপুরাদের প্রধান সামাজিক উৎসব বৈসু উপলক্ষে ‘‘বাংলাদেশ ত্রিপুরা কল্যাণ সংসদ কেন্দ্রীয় কমিটির” উদ্যোগে সপ্তাহব্যাপী “ত্রিপুরা সংস্কৃতি মেলা” ২০১৯ উদ্বোধন করা হয়েছে।
১২ এপ্রিল ২০১৯খ্রি. শুক্রবার সকাল ৯টায় বৈসু উপলক্ষে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা মাঠ প্রাঙ্গন থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে ঐতিহ্যবাহী খাগড়াপুর (হারুং পাড়া) মাঠে মেলা প্রাঙ্গনে এসে শেষ হয়। বৈসুর র‌্যালী র‌্যালী উদ্বোধক ও প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ভারত প্রত্যাগত উপজাতীয় শরণার্থী প্রত্যাবাসন ও পুনর্বাসন এবং অভ্যন্তরীণ উদ্ধাস্ত নিদিষ্টকরণ ও পুনর্বাসন সর্ম্পকিত টাস্কর্ফোস চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রী পদমর্যাদা সম্পন্ন) ও ২৯৮নং খাগড়াছড়ির সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, এমপি। জেলার ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের তরুণ-তরুণীরা নিজস্ব পোশাক পড়ে শোভাযাত্রায় অংশ নেয়।
খাগড়াছড়িতে সপ্তাহব্যাপী বৈসু উপলক্ষে ত্রিপুরা সংস্কৃতি মেলা উদ্বোধন
র‌্যালীর শেষে মঙ্গোলীয় প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে মেলা উদ্বোধন করেন খাগড়াছড়ি রিজিয়নের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হামিদুল হক, এনএসডব্লিউসি, পিএসসি অন্যদিকে গরয়া নৃত্য উৎসব উদ্বোধন করেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী মহোদয়।

এছাড়াও মেলায় সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নলেন্দ্র লাল ত্রিপুরার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ভারত প্রত্যাগত উপজাতীয় শরণার্থী প্রত্যাবাসন ও পুনর্বাসন এবং অভ্যন্তরীণ উদ্ধাস্ত নিদিষ্টকরণ ও পুনর্বাসন সর্ম্পকিত টাস্কর্ফোস সাবেক চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রী পদমর্যাদা সম্পন্ন) ও সাবেক ২৯৮নং খাগড়াছড়ির সংসদ সদস্য যতীন্দ্র লাল ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি বিজিবির সেক্টর কমান্ডার, খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মোঃ শহিদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার জনাব মোহাঃ আহমার উজ্জামান, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের সম্মানিত সদস্য খগেশ্বর ত্রিপুরা, খোকনেশ্বর ত্রিপুরা, পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল, খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার চেয়ারম্যান মোঃ শানে আলমসহ বিভিন্ন সামরিক-বেসমারিক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ।
মেলায় মূল আকষর্ণীয় হিসেবে রয়েছে ত্রিপুরাদের ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতি বিষয়ক উপকরণ, প্রকাশনা ইত্যাদি প্রদর্শনী স্টল।
এছাড়াও আগামীকাল ১৩এপ্রিল ২০১৯খ্রি. ঐতিহ্যবাহী ত্রিপুরা সংস্কৃতির একটি অংশ হিসেবে সকলের মাঝে শান্তি সমৃদ্ধির জন্য গঙ্গায় নতুন কাপড় ও ফুল ভাসানো অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন স্থানীয় এমপির সহধর্মিণী মল্লিকা ত্রিপুরা।
খাগড়াছড়িতে সপ্তাহব্যাপী বৈসু উপলক্ষে ত্রিপুরা সংস্কৃতি মেলা উদ্বোধন
উল্লেখ্য, যে কোন জাতিগোষ্ঠীর অস্তিত্ব এবং স্বাতন্ত্রতার ভিত্তি বা পরিচিতি হলো তার সংস্কৃতি। সংস্কৃতি বিলুপ্তি মানে তার স্বাতন্ত্রতা বা পরিচিতি বিলুপ্ত হওয়া। কিন্তু বাংলাদেশে সংখ্যাগত ভাবে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠী একটি প্রান্তিক জনগোষ্ঠী। বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক এবং অর্থনৈতিক কারণে এ জনগোষ্ঠীর সংস্কৃতি আর বিলুপ্তির পথে। এ অবস্থায় বিলুপ্তপ্রায় সংস্কৃতিকে পুনঃজাগরণ করার জন্য বাংলাদেশের ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর প্রধান সামাজিক সংগঠন ‘‘বাংলাদেশ ত্রিপুরা কল্যাণ সংসদ” বৈসু উপলক্ষে প্রথমবারের মতো “ত্রিপুরা সংস্কৃতি মেলা’ আয়োজন করা হয়েছে। এই মেলায় ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রতিচ্ছবি ও কার্যক্রমকে নতুন প্রজন্মের কাছে এবং অপরাপর জনগোষ্ঠীর মাঝে তুলে ধরার মাধ্যমে বিপন্ন প্রায় ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কার্যক্রমকে বিকশিত করার পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে সংস্কৃতি মেলায় ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী খেলাধূলা, পোষাক পরিচ্ছদ, ঐতিহ্যবাহী অলংকার, খাবার দাবার, দৈনন্দিন ব্যবহারিক উপকরণ, পূজা পার্বণ, ত্রিপুরা জনগোষ্ঠী সম্পর্কিত বিভিন্ন ঐতিহাসিক বই পুস্তক ইত্যাদি প্রদর্শন করার পাশাপাশি প্রতিদিনি ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন গান (ফোক মিউজিক), নৃত্য এবং বাদ্যযন্ত্র ব্যবহার করে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হবে এবং ঐতিহ্যবাহী পোষাক পরে র‌্যালী আয়োজন করা হবে। ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর সংস্কৃতি সংরক্ষণ করা; ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক কার্যক্রমকে তুলে ধরা, ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর সংস্কৃতি চর্চার ক্ষেত্র তৈরী করা এবং ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর সংস্কৃতি বিকশিত করাই হচ্ছে এই মেলার প্রধান লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। মেলায় সহযোগিতা করছেন ত্রিপুরা সমাজের কয়েকটি সমাজ উন্নয়ন মূলক সামাজিক ও অরাজনৈতিক সংগঠন “ত্রিপুরা স্টুডেন্টস্ ফোরাম, বাংলাদেশ (টিএসএফ), য়ামুক (একটি সাংস্কৃতিক আন্দোলন) ও খাগড়াপুর সালকাতাল ক্লাব।

আগামী ১৯ এপ্রিল সমাপনী দিনে মেলায় বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে থাকছে ভারতের খ্যাতনামা ককবরকভাষি শিল্পীদের অংশগ্রহণ। ত্রিপুরা জাতির সংস্কৃতি প্রদর্শনের পাশাপাশি বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত স্বনামধন্য শিল্পী ও ভারতীয় স্বনামধন্য ককবরক কন্ঠশিল্পী সুরভী দেববর্মা (ইন্ডিয়ান আইডল ও বলিউড শিল্পী, রুমি মুরাসিং, কোনাল দেববর্মা, মিলটন দেববর্মা, ডাঃ বিপাশা রিয়াংসহ আরো অনেকে অংশ নেবে বলে জানা যায়। এছাড়াও থাকছে স্থানীয় খাগড়াছড়ির ত্রিপুরাদের মধ্যে প্রথম ব্যান্ড গ্রুপ ‘‘ত্রিপুরা হলং ব্যান্ড ও তৈসা ব্যান্ড”।

সংবাদকর্মি নিয়োগ চলছেঃ-

দেশের সকল জেলা উপজেলাইয় সংবাদকর্মি নিয়োগ চলছে । আমাদের সাথে কাজ করতে সরাসরি যোগাযুগ করুন ০১৭১১০০০২১৪