কত টাকায় রোহিঙ্গা পাসপোর্ট?

1

আজকের কাগজ ডেস্কঃ গড়ে কেবল এক লাখ টাকা খরচ করলেই বাংলাদেশি পাসপোর্ট মিলছে রোহিঙ্গাদের৷ তাদের সহায়তা করছে বাংলাদেশেরই দালাল চক্র৷ এখন সফটওয়্যারের সঙ্গে ইন্টারভিউ মিলিয়ে রোহিঙ্গাদের সনাক্ত করার কাজ করছে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর৷

গত সপ্তাহে টেকনাফের হ্নীলা জাদিমুরা এলাকায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত রোহিঙ্গা নূর মোহাম্মদের বাংলাদেশের জাতীয় পরিচয়পত্র- এনআইডি ছিলো৷ বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামে বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী তিন রোহিঙ্গা যুবক আটক হওয়ার পর রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি পাসপোর্ট পাওয়ার নানা কাহিনী ও কৌশলের কথা জানা যাচ্ছে৷

ওই তিন যুববেকর মধ্যে দু’জন হলেন মিয়ানমারে মংডু জেলার অংচি গ্রামের আলী আহমদের ছেলে মো. ইউসুফ ও মো. মুসা, আরেকজন মিয়ানমারের একই এলাকার মো. আজিজ৷ তারা গত ডিসেম্বর নোয়াখালীর সেনবাগের ঠিকানা ব্যবহার করে এনআইডি সংগ্রহ করেন, পরবর্তীতে নোয়াখালীর আঞ্চলিক পার্সপোর্ট অফিস থেকে সংগ্রহ করেন পাসপোর্ট৷

শুধু পাসপোর্ট নিয়ে বলে থাকেননি তারা৷ চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা আসছিলেন, সেই পাসপোর্ট দিয়ে তুরস্কের ভিসার আবেদন করতে৷ চট্টগ্রামের আকবর শাহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ‘‘তাদের ন্যাশনাল আইডি কার্ড এবং পাসপোর্ট দালালরা করে দিয়েছে৷ দালালরাই তাদের ওই কাজের সময় নোয়াখালী নিয়ে কয়েকদিন রেখেছিল৷ তিন জন দালালের নাম তারা জানিয়েছে৷ তারা ওই তিন দালালকে তিনটি পাসপোর্টের জন্য যথাক্রমে এক লাখ পাঁচ হাজার , ৯০ হাজার এবং ৬০ হাজার টাকা দিয়েছে৷ দুটি পাসপোর্ট করা হয় ডিসেম্বরে এবং একটি জানুয়ারি মাসে৷”

সারাদেশেই রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট করে দেয়ার জন্য এইরকম আরো অনেক দালাল চক্র আছে বলেও জানান জানান মোস্তাফিজুর রহমান৷

চট্টগ্রাম বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসেও গত এক মাসে আরো চারজন রোহিঙ্গা বাংলাদেশি পাসপোর্ট করতে গিয়ে ধরা পড়েছেন৷ বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসের পরিচালক আবু সাঈদ জানান, ‘‘আমরা মূলত ইন্টারভিউ করে ওই চারজনকে শনাক্ত করে পুলিশে দিয়েছি৷ কিছু কৌশগত প্রশ্ন করলেই তারা ধরা পড়ে যায়৷ আবার ভাষার কারণেও ধরা পড়ে৷ যেমন বাংলাদেশি নাগরিক হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে সে বলতে পারবে৷ তবে দালালরা আমাদের কৌশল জেনে যায়৷ তাই আমাদেরও কৌশল পরিবর্তন করতে হয়৷ কিন্তু এনআইডি বা জন্ম নিবন্ধনের কাগজ তারা কিভাবে জোগাড় করে এটাই প্রশ্ন৷”

গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে কক্সবাজারের উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল খায়ের ডয়চে ভেলেকে এই কৌশলের একটি ধারণা দিয়েছিলেন৷

‘‘ধরুন, ময়মনসিংহে এক নারীর নাম মরিয়ম৷ তিনি বাংলাদেশেরই নাগরিক৷ তাঁর ন্যাশনাল আইডি কার্ড জোগাড় করে নাম, ঠিকানা, পিতা বা স্বামীর নাম সবই ঠিক রাখা হয়৷ এই একটি ডকুমেন্ট ধরেই আরো প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট পাওয়া যায়৷ এরপর ওই নামেই আরেক রোহিঙ্গা নারীর জন্য পাসপোর্টের আবেদন করা হয়৷”

এই দুর্নীতির সঙ্গে পাসপোর্ট অফিসের নিম্ন পর্যায়ের কিছু কর্মচারীও জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে৷

ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সোহায়েল হোসেন খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরাই তো রোহিঙ্গাদের শনাক্ত করছি৷ এ পর্যন্ত পাসপোর্টের আবেদন করতে আসা কয়েকশ’ রোহিঙ্গাকে শনাক্ত করে পুলিশে দিয়েছি৷ তবে তারা আবেদনের আগে এনআইডি, জন্ম নিবন্ধন কিভাবে পায় তা তো আমরা বলতে পারব না৷ তারাতো পুলিশ ভেরিফিকেশন রিপোর্টও পায়৷”

তিনি বলেন, ‘‘আমরা আমাদের সব পাসপোর্ট অফিসকে সতর্ক করেছি৷ এখন আমরা সফটওয়ার ব্যবহার করছি ভুয়া আবেদন ধরার জন্য৷ আর ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমেও শনাক্ত করছি৷ বিশেষ করে আমাদের কাছে দেয়া ফিঙ্গার প্রিন্ট, রোহিঙ্গাদের ফিঙ্গার প্রিন্ট এবং এনআইডির ফিঙ্গার প্রিন্ট মিলিয়ে দেখছি৷”

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, রোহিঙ্গাদের যে তালিকা, ফিঙ্গার প্রিন্ট ও ছবি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আছে, তার বাইরেও অনেক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আছেন৷

চট্টগ্রাম এলাকায় অন্তত ৭৩টি সন্দেহজনক এনআইডি দেখা গেছে সার্ভারে৷ এ নিয়ে ঢাকায় এই প্রকল্পের দায়িত্বশীল কাউকে কথা বলার জন্য পাওয়া যায়নি৷ তবে চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মুনির হোসাইন খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এটা খতিয়ে দেখার জন্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে ঢাকা থেকে৷ তার একজন সদস্য উপ সচিব খুরশিদ আলম এরই মধ্যে চট্টগ্রামে আছেন তদন্তের জন্য৷”

রোহিঙ্গারা কিভাবে এনআইডি পায় জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন, ‘‘এটা তদন্ত শেষে বলা যাবে৷”

গত বছরের এপ্রিলে তৎকালীন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, প্রায় আড়াই লাখ রোহিঙ্গা বিভিন্ন সময়ে অবৈধ প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশি পাসপোর্ট সংগ্রহ করে বিদেশে পাড়ি জমিয়েছেন৷ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সূত্রে জানা গেছে, গত এক বছরে অবৈধ উপায়ে পাসপোর্ট সংগ্রহের অভিযোগে কমপক্ষে চারশ’ রোহিঙ্গা নারী ও পুরুষ আটক হয়েছেন৷ সূত্রঃ পিবিএ