উত্তীর্ণদের অভিনন্দন,অনুত্তীর্ণদের জন্য সাহস প্রধানমন্ত্রীর

2

জাতীয়:: এ বছর এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় যারা ভালো করেছে, তার ধারাবাহিকতা ধরে রেখে শিক্ষার্থীরা ভবিষ্যতে আরও ভালো ফল অর্জনে সক্ষম হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। লন্ডনে অবস্থান করা প্রধানমন্ত্রী সোমবার পাঠানো এক বাণীতে স্কুলের গন্ডি পেরিয়ে কলেজে পা রাখতে যাওয়া শিক্ষার্থীদের শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন।পাশাপাশি অনুত্তীর্ণদের আগামীতে ভালো ফল করার সাহসও ‍যুগিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি সকালে এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার যে ফল ঘোষণা করেছেন, তাতে পাসের হার এসেছে ৮২ দশমিক ২০ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছে, জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৫ হাজার ৫৯৪ জন। এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় গতবার ৭৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছিল; জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১ লাখ ১০ হাজার ৬২৯ জন। সেই হিসাবে এবার পাসের হার বেড়েছে ৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ পয়েন্ট। আর পূর্ণাঙ্গ জিপিএ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে ৫ হাজার ৩৫ জন। ফল ঘোষণার এই আয়োজনেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাঠানো বাণী পড়ে শোনান শিক্ষামন্ত্রী। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রীও কথা বলেন।প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং শিক্ষকদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, যেসব শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হতে পারনি, আমি তোমাদের ধৈর্য্য ধরে, মনোযোগ সহকারে আবার প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি, যাতে আগামীতে ভালোভাবে উত্তীর্ণ হতে পার। মানুষের অসাধ্য কিছুই নেই। একাগ্রতা, অধ্যবসায় এবং পরিশ্রম যেকোনো অসাধ্যকে সাধন করতে সহায়তা করতে পারে। তোমরা যারা যেকোনো কারণেই হোক উত্তীর্ণ হতে পারনি, তোমাদের হতাশ হওয়ার কিছু নেই। এখন থেকে চেষ্টা করলে ভবিষ্যতে নিশ্চয়ই তোমরা এ বাধা অতিক্রম করে ভাল ফল অর্জন করতে পারবে।প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ বছর রেকর্ড ২০ লাখ ৩১ হাজার ৮৯৯ শিক্ষার্থী এসএসসি, দাখিল এবং সমমানের পরীক্ষায় অবতীর্ণ হয়েছিল। যেসব শিক্ষার্থী ভাল ফল করেছ, তোমাদের এই ধারাবাহিকতা ধরে রেখে ভবিষ্যতে আরও ভাল ফল করতে হবে। মনে রাখবে তোমরাই আগামীর বাংলাদেশের কর্ণধার। তোমাদেরই এদেশের জনগণ এবং বিশ্বাবাসীর সেবায় নিয়োজিত হতে হবে। এজন্য জ্ঞান-বিজ্ঞান, প্রযুক্তি আয়ত্তের পাশাপাশি দেশপ্রেমিক এবং মানবিকতায় পরিপূর্ণ মানুষ হয়ে গড়ে উঠতে হবে। শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের সম্পদের সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও আগামী প্রজন্মকে আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত করে একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার উপযোগী করে গড়ে তোলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।প্রতি বছরের মতো এবার ফল ঘোষণার সময় উপস্থিত থাকতে না পারায় দুঃখও প্রকাশ করেন তিনি।