রাজনীতি

এরশাদের দাফন বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত মঙ্গলবার

রাজনীতি:: সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের দাফন বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) জানানো হবে বলে জানিয়েছেন পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গাঁ। রোববার (১৪ জুলাই) বিকেলে দলীয় নেতাকর্মীদের বিক্ষোভের পর তিনি একথা জানান। উন্মুক্ত স্থানে এরশাদকে দাফনের বিষয়ে নেতাকর্মীদের বিক্ষোভের পর মশিউর রহমান রাঙ্গাঁ বলেন, এরশাদের দাফন কোথায় হবে তা এখনো চূড়ান্ত নয়। আগামী ১৬ জুলাই দলের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক হবে। সেখানেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মহাসচির রাঙা বলেন, নেতাকর্মীদের দাবি অনুয়ায়ী এরশাদের দাফন কোথায় হবে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে এরশাদ সাহেব চেয়েছেন সেনাবাহিনীর কবরস্থানেই তাকে দাফন করা হোক। কিন্তু দলীয় নেতাকর্মীদের দাবিকে প্রাধ্যান্য দিয়ে উচ্চ পর্যায়ে আলোচনা করা হবে। এরপর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। কার্যালয়ে বিফ্রিং শেষে বের হয়ে যাওয়ার সময় নেতাকর্মীদের বিক্ষোভের মুখে পড়েন রাঙ্গাঁ। এসময় তিনি নেতাকর্মীদের শান্ত থাকার অনুরোধ জানান। এর আগে, ঢাকায় সামরিক কবরস্থানে এরশাদকে দাফন করা হবে বলে জানানো হয়েছিলো দলের পক্ষ থেকে। এর পরপরই বনানী কার্যালয়ের সামনে নেতাকর্মীদের বিক্ষোভ শুরু হয়। এসময় এরশাদকে উন্মুক্ত স্থানে দাফনের দাবিতে সরব হয়ে ওঠেন দলের নেতাকর্মীরা। সামরিক কবরস্থানে এরশাদকে দাফনের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে বনানী কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ মিছিলও করেন নেতাকর্মীরা। এদিকে, জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের স্মরণে মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) থেকে একটি শোকবই খোলা হবে। রোববার (১৪ জুলাই) জাপার চেয়ারম্যানের প্রেস অ্যান্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভরায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, দলের চেয়ারম্যানের বনানীস্থ কার্যালয় ও কাকরাইলস্থ জাপার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পল্লীবন্ধু এরশাদের স্মরণে ১৬ জুলাই (মঙ্গলবার) থেকে ১৮ জুলাই পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত শোকবইটি খোলা থাকবে। এর আগে রোববার সকাল ৭টা ৪৫মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর।

Show More