মেগান মার্কেলকে সমর্থন করলেন টিউলিপ, রুপাসহ ৭২ নারী এমপি

1

আন্তর্জাতিকঃ ব্রিটিশ রাজপরিবারের পুত্রবধূ ও ডাচেস অব সাসেক্স মেগান মার্কেলকে সমর্থন জানাতে দেশটির নারী আইনপ্রণেতাদের প্রচারাভিযানে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ এমপিরা। টেলিভিশন ডকুমেন্টারিতে ব্রিটিশ ট্যাবলয়েডগুলোর ব্যক্তিগত আক্রমণ ও অন্যায্যতা নিয়ে মেগানের কথা বলার কয়েকদিন পর মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) সংহতি জানিয়ে খোলা চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন ৭২ নারী এমপি। এদের মধ্যে রয়েছেন বিরোধী লেবার পার্টির এমপি টিউলিপ সিদ্দিক ও রুপা হক। সংবাদমাধ্যমের ওই আক্রমণকে ‘ঔপনিবেশ মানসিকতা’ বলে  এর নিন্দাও জানান ব্রিটিশ এমপিরা।

খোলা চিঠিতে স্বাক্ষর করা বেশিরভাগই নারী এমপি লেবার পার্টির। তবে তাদের মধ্যে কনজারভেটিভ ও লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির এমপিও রয়েছেন। লেবার এমপি হলি লিঞ্চের কার্যালয় থেকে লেখা চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘আপনি (মেগান), আপনার চরিত্র ও পরিবার নিয়ে আমাদের জাতীয় পত্রিকাগুলোতে প্রকাশিত প্রতিবেদনগুলোর  অধিকাংশ বিরক্তিকর ও বিভ্রান্তিমূলক। আমরা এর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে আপনার প্রতি সংহতি প্রকাশ করতে চেয়েছি।’

চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘আমরা যতদূর দেখতে পাচ্ছি, কোনও ভালো কারণ ছাড়াই ওই সব অনুষ্ঠান, প্রতিবেদন ও হেডলাইনে আপনার প্রাইভেসি (ব্যক্তিগত গোপনীয়তা) ও চরিত্রকে কলঙ্কিত করে উপস্থাপনা করা হয়েছে। আমরা গভীর উদ্বেগের সঙ্গে ওইসব প্রতিবেদনকে ‘সেকেলে’, ‘ঔপনিবেশিক মানসিকতা’ বলে আখ্যা দিচ্ছি।’

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘ নারী হিসেবে আমরা প্রকাশ্য জীবনে আপনাকে আলাদাভাবে দেখতে পাই। পাবলিক অফিসে নারীর প্রতি অবমাননা ও হুমকি দেওয়ার ঘটনা আমরা প্রতিনিয়ত দেখি। আমরা আশা করি জাতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর যে কোনও সংবাদ প্রকাশের ক্ষেত্রে জাতীয় স্বার্থ রয়েছে কিনা বা কোনও নারীর প্রতি অবমাননা হচ্ছে কিনা তা সততার সঙ্গে বিবেচনা করতে হবে।’

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, ‘আমরা আপনার প্রতি সংহতি জানাচ্ছি। আপনার গোপনীয়তা রক্ষা, সম্মান প্রদর্শন ও আমাদের সংবাদমাধ্যমগুলোতে সত্যের প্রতিফলন নিশ্চিত করতে আমরা সব ধরনের উপায় অবলম্বন করবো।’

প্রথমবারের মতো মার্কেলের বক্তব্য একটি ডকুমেন্টারি বা তথ্যচিত্রে প্রকাশ পেয়েছে, যা গত সপ্তাহে যুক্তরাজ্যের আইটিভি’তে সম্প্রচারিত হয়। তথ্যচিত্রে ব্রিটিশ রাজপরিবারের সদস্য হিসেবে সংবাদমাধ্যমের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকা সদ্যোজাত শিশু আর্চির মা হিসেবে নিজের সংগ্রামের কথাও বলেছেন মেগান মার্কেল। ৩৮ বছর বয়সী সাবেক এ অভিনেত্রী বলেন, ‘আমি জানি রাজপরিবারের ভূমিকায় এটা সহজ পদক্ষেপ হবে না। তবে আশা করেছিলাম অন্তত ন্যায্য হবে।’

তথ্যচিত্রে তার স্বামী ডিউক অব সাসেক্স প্রিন্স হ্যারি তার ওপর চাপ সৃষ্টির কথা বলেছেন। স্ত্রীর বিষয় নিয়েও উদ্বিগ্ন তিনি। বলেন, তার মা প্রিন্সেস ডায়নাও একই চাপে ছিলেন, যিনি ১৯৯৭ সালে প্যারিসে গাড়ি দুর্ঘটনায় মারা যান।

একটি ব্যক্তিগত চিঠি প্রকাশের জন্য ‘মেইল অন সানডে’ সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নিচ্ছেন মার্কেল, যা তিনি তার বাবা থমাস মার্কেলের কাছে লিখেছিলেন। আর ফোন হ্যাকিংয়ের অভিযোগে ‘নিউজ অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ (বিলুপ্ত) ও ‘দ্য মিরর’ (বিলুপ্ত) এবং ‘দ্য সান’ সংবাদমাধ্যমের মালিকের বিরুদ্ধে মামলা করছেন প্রিন্স হ্যারি।  জনমত নিউজ