র‌্যাব-৮, সিপিসি-৩ মাদারীপুর ক্যাম্প কর্তৃক মাদারীপুর সদর হতে অপহরণের ০৩ দিন পর অপহৃত ভিকটিম উদ্ধার ও তিন অপহরণকারী আটক

1

অনলাইন ডেস্কঃ র‌্যাব-০৮, সিপিসি-০৩ মাদারীপুর ক্যাম্প এর একটি আভিযানিক দল গত ২৭ ডিসেম্বর ২০১৯ইং তারিখ বিকাল আনুুমান ১৬.৩০ ঘটিকার সময় মাদারীপুর জেলার মাদারীপুর সদর থানাধীন ঝিকরহাটি গ্রামে অভিযান পরিচালনা করে গত ২৫-১২-২০১৯ইং তারিখ মাদারীপুর জেলার মাদারীপুর সদর হতে অপহৃত ৬৫ বছরের বৃদ্ধ ভিকটিমকে উদ্ধার করে। এ সময় তিনজন স্বক্রিয় অপহরণকারী সদস্য যথাক্রমে ১। মিজানুর রহমান(৩৫), পিতাঃ হাফেজ ফকির, ২। সোবাহান মোল্লা(২২), পিতাঃ চান মিয়া মোল্লা, উভয় সাং-ঝিকরহাটি, ৩। মনির ভূইয়া(৩৭), পিতাঃ রফিক ভূইয়া, সাং- মোস্তফাপুর, সর্ব থানাঃ মাদারীপুর সদর, জেলাঃ মাদারীপুরদেরকে ঘটনাস্থল হতে আটক করেন। ঘটনার বিবরণে জানা যায়, ভিকটিম পরিমল মিত্র(৬৫) পেশায় একজন কবিরাজ। উক্ত ভিকটিম গত ২৫-১২-২০১৯ইং সকাল ০৭.০০ ঘটিকায় নিজ বাড়ী হতে ভিকটিমের মেয়ে জামাই বাড়ী গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর থানার দাসেরহাট গ্রামের উদ্দেশ্য রওনা হয় এবং পথিমধ্যে মাদারীপুর সদর থানাধীন তাতিবাড়ী বাজারে সোবাহান মোল্লা নামক এক ব্যক্তিকে ওষুধ দেবেন বলে ভিকটিমের পরিবারকে জানায়। পরবর্তীতে ভিকটিম সকাল ১০.০০ ঘটিকার সময় মাদারীপুর সদর থানাধীন তাতিবাড়ী বাজারে পৌছালে অপহরণ চক্রের সদস্য রোগী দেখানোর কথা বলে ভিকটিমকে অপহরণ চক্রের অপর সদস্য সোবাহান মোল্লা(২২) এর বসত ঘরে নিয়ে আটকিয়ে রাখে এবং মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ভিকটিমের পরিবারের নিকট মুক্তিপণ হিসাবে ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করেন। এ বিষয়ে ভিকটিমের পরিবার বরিশাল জেলার গৌরনদী থানায় একটি নিখোঁজ জিডি করেন (গৌরনদী মডেল থানার সাধারন ডায়েরী নং-১২৮৭, তারিখ ২৬-১২-১৯ ইং) এবং উক্ত ভিকটিমকে উদ্ধারের জন্য র‌্যাব-৮, সিপিসি-৩, মাদারীপুর ক্যাম্পের নিকট সহায়তা কামনা করেন। তদপ্রেক্ষিতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-০৮, সিপিসি-০৩ মাদারীপুর ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল ২৭ ডিসেম্বর ২০১৯ইং তারিখ বিকাল আনুুমান ১৬.৩০ ঘটিকার সময় মাদারীপুর জেলার মাদারীপুর সদর থানাধীন ঝিকরহাটি গ্রামে অভিযান পরিচালনা করে উক্ত অপহৃত ভিকটিমকে অপহরণ চক্রের সদস্য সোবাহান মোল্লা(২২) এর বসত বাড়ী হতে উদ্ধার করেন। এ সময় মূল অপহরণকারীগণ কৌশলে পালানোর চেষ্টা করলে তাদেরকে হাতে নাতে আটক করা হয়। আটককৃত আসামীদেরকে মাদারীপুর জেলার সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়। এ সংক্রান্তে ভিকটিমের স্ত্রী বাদী হয়ে মাদারীপুর সদর থানায় মামলা দায়ের করেন।